ব্রেকিং:
নয়াপল্টনে ভাংচুরকারী সন্ত্রাসীদের ধরিয়ে দিতে পুলিশের অনুরোধ ৭ নভেম্বরের পর দেশ দখলের হুমকি দিলো বিএনপির দুদু

মঙ্গলবার   ১১ ডিসেম্বর ২০১৮   অগ্রাহায়ণ ২৭ ১৪২৫   ০২ রবিউস সানি ১৪৪০

১৬

৬ ডিসেম্বর মেহেরপুর মুক্ত দিবস

নিজস্ব প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ৬ ডিসেম্বর ২০১৮  

৬ ডিসেম্বর মেহেরপুর মুক্ত দিবস। ১৯৭১ সালের এ দিন মুক্তিবাহিনীর প্রতিরোধের মুখে পাক হানাদার বাহিনীর সদস্যরা পালিয়ে গেলে মেহেরপুরে উড়ে বিজয় পতাকা। 

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের ডাকে স্বাধীনতার উদয় ভূমি মুজিবনগর তথা মেহেরপুরের মানুষ মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েন। তৎকালীন এসডিও ড. তৌফিক-ই-এলাহির সক্রিয় ভূমিকায় ছাত্র, আনসার-মুজাহিদদের নিয়ে মুক্তিবাহিনী গড়ে তোলা হয়। ভারতের বিভিন্ন স্থানে প্রশিক্ষণ নিয়ে মুক্তি সেনারা জেলায় প্রবেশ করে পাক বাহিনীর বিরুদ্ধে দুর্বার প্রতিরোধ গড়ে তোলেন। চারদিক থেকে একের পর এক আক্রমণের মুখে পাক সেনারা ১৯৭১ সালের ৫ ডিসেম্বর রাত থেকেই মেহেরপুর ছেড়ে অন্যত্র পালিয়ে যায়। 

৬ ডিসেম্বর সকালে পাক বাহিনীর আর কোন সদস্যকে খুঁজে পাওয়া যায়নি। তাইতো পরাধীনতার শিকল থেকে বিজয়ের স্বাদ গ্রহণ করেন মেহেরপুরবাসী। 

এদিন সকাল থেকেই রাস্তায় নেমে আসেন বিভিন্ন বয়সী মানুষ। বিজয় পতাকা উড়িয়ে জয়ল্লোস করেন মুক্তিকামী হাজারও জনতা। সেদিনের বিষয়ে স্মৃতি চারণে এমনই জানান মেহেরপুরের বীর মুক্তিযোদ্ধারা। 

তারা আরও জানান, মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতিরোধে দিশেহারা পাক সেনারা মেহেরপুর ছাড়ার সময় দিন-দত্ত ব্রিজ, খলিশাকুন্ডি ও তেরাইল ব্রিজ ধ্বংস করে দেয়। ধ্বংস করে বৈদ্যুতিক বিভিন্ন স্থাপনা। 

১৯৭১ সালের ১৭ এপ্রিল মুজিবনগরের তৎকালীন বৈদ্যনাথতলা অস্থায়ী সরকারের শপথ গ্রহণের পর কার্যত পাকসেনাদের লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত হয় মেহেরপুর জেলা। তারা মেহেরপুর সরকারী কলেজসহ বিভিন্ন স্থানে ঘাটি তৈরি করে। মুক্তিযোদ্ধাদের পরিবার ও সাধারণ মানুষের উপর শুরু হয় বর্বর নির্যাতন। চলে গণহত্যা। এসময় কত মানুষকে হত্যা করা হয়েছে তার সঠিক পরিসংখ্যান কারো জানা নেই। তবে পাক সেনারা মেহেরপুর ছেড়ে গেলে সরকারী কলেজ ও ওয়াপদা মোড় এলাকা থেকে বিপুল সংখ্যক মানুষের কঙ্কাল সংগ্রহ করে সমাহিত করা হয় কলেজ মোড়ে। 

নাম না জানা অসংখ্য শহীদদের স্মৃতি রক্ষায় পরবর্তীতে সেখানে নির্মাণ করা হয় একটি স্মৃতিসৌধ। স্মৃতিসৌধ ঘিরে প্রতি বছরের ন্যায় এবারো মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড, আওয়ামী লীগসহ বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠন দিবসটি পালনে বিভিন্ন কর্মসূচী গ্রহণ করেছে।  

শহীদদের কবর জিয়ারত, স্মৃতিসৌধে পুষ্পার্ঘ অর্পণ, আলোচনা সভাসহ বিভিন্ন অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে দিবসটি পালন করা হবে জানান জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার বশির আহমেদ।

মেহেরপুর বার্তা
মেহেরপুর বার্তা
এই বিভাগের আরো খবর