বুধবার   ১৬ অক্টোবর ২০১৯   আশ্বিন ৩০ ১৪২৬   ১৬ সফর ১৪৪১

৯৬৩

হিজাব যখন কনের পোশাক

লাইফস্টাইল ডেস্ক

প্রকাশিত: ১০ ডিসেম্বর ২০১৮  

ফ্যাশন অনুষঙ্গ হিসেবে নারীদের কাছে হিজাব একটি চলমান ট্রেন্ড। পর্দা করা ছাড়াও হিজাবের রয়েছে নানা উপকারী দিক। বাইরের ধুলাবালি থেকে ত্বক ও চুলের সুরক্ষা দিতে এর তুলনা হয় না। আর সৌন্দর্যের ব্যাপার তো আছেই। তাই আজকাল পর্দা করার সাথে সাথে হিজাবের চাহিদা অনেক বেড়েছে। কিন্তু অনেকেই আছেন যারা সারা বছর হিজাব করলেও বিয়ের সময় হিজাব পরতে পছন্দ করেন না। আবার অনেকে আছেন যারা হিজাব পরতে পারবে না বলে বিয়েতে সুন্দর করে সাজতেও নারাজ।

যারা তাদের বিয়ের দিনটিতেও হিজাবের মাধ্যমে ফুটিয়ে তুলতে চান আমাদের আজকের আয়োজন তাদের জন্য।  আমরা অনেকেই জানি না যে আপনি চাইলেই হিজাবের মাধ্যমেই হয়ে উঠতে পারেন সবচাইতে সুন্দর বিয়ের কনে। এর জন্য আপনাকে শুধু এটা জেনে নিতে হবে যে কীভাবে হিজাব বাঁধলে আপনাকে বেশি সুন্দর লাগবে বা লাগে।

আসুন তাহলে আজ আমরা জেনে নেই বিয়ের কনের হিজাব পরার কিছু টিপস। এবং ছবিতে দেখে নেই কিছু হিজাব পরা বয়ের ছবি।

১. আপনি যদি একটু ভাড়ি গহনা ব্যবহার করেন তাহলে সেটাকেই আপনি হিজাবের অংশ হিসেবে ব্যবহার করতে পারেন। কপালের দিক কাভার করার জন্য।

২. আপনার বিয়ের পোশাক নিশ্চই আপনার দেশ রীতি ও কালচার অনুযাই হবে। আপনি সেটাকেই প্রাধান্য দিলেই বুদ্ধিমানের কাজ করবেন।


৩. আফ্রিকার কিছু অঞ্চলে মুসলিমদের বিয়েতে, কনে এবং অতিথি সবাইকেই একই স্টাইলে হিজাব পরতে দেখা যায়।


৪. কানের দুল ঢেকে যাওয়ার ভয় করছেন? শুধু দুল নয়, ঝাপটা ও টিকলীও ব্যবহার করতে পারেন হিজাবের উপর।


৫.  আলাদা স্কার্ফ ব্যবহার করতে না চাইলে, আপনার ওড়না দিয়েউই মাথা কাভার করুন হিজাবের মতো করে। 

৬. বিয়ের শাড়ি, বা কামিজ ও ওড়নার সাথে যদি হিজাবের মিল রাখেন সেটাতে আপনাকে দেখাবে অন্যরকম সুন্দর।


৭. বিয়ের পোশাকের রঙ লাল হোক বা অন্য রঙের হিজাব ও গহনার সাথে ম্যাচ করার ওপর অনেক কিছু নির্ভর করে।


৮. আপনি আপনার বিয়েতে কি পরছেন এবং কোন দেশের রীতি মেনে সাজবেন সেটা আপনার ব্যাক্তি স্বাধীনতার বিষয়। তবে সেই সাজ পোসাকে আপনি কি বোঝাতে চাইছেন সেটা বুঝতে পারাই আসল।

৯. শুধু হিজাব বাঁধলেই হবে না। সাথে আপনার পোশাক, গহনার সাথে মেকআপের দিকেও নজর দেয়া জরুরি।

মোট কথা হচ্ছে বিয়ে আপনার জীবনের একতি গুরুত্বপূর্ণ মুহুর্ত। যে মুহুর্তটার স্মৃতি আপনার সাথে থাকবে সারা জীবন। তাই বিয়ের সময়টাতে আপনার ধর্ম, বর্ণ, দেশ, কালচার এবং আপনার ব্যাক্তিগত রুচি সব কিছুই প্রকাশ পাবে। তাই সারা জীবন নিজের আনন্দময় সময়টাকে ধরে রাখার জন্য তারকাদের বা অন্যকে  ফোলো না করে সেটাই করুন যেটাতে আপনাকে মানাবে। আর ধর্মীয় দিককে যদি আপনি প্রাধান্য দিতে চান। তাহলে হিজাবেই হয়ে উঠতে পারেন অনন্যা।

মেহেরপুর বার্তা
মেহেরপুর বার্তা