ব্রেকিং:
নয়াপল্টনে ভাংচুরকারী সন্ত্রাসীদের ধরিয়ে দিতে পুলিশের অনুরোধ ৭ নভেম্বরের পর দেশ দখলের হুমকি দিলো বিএনপির দুদু

মঙ্গলবার   ১১ ডিসেম্বর ২০১৮   অগ্রাহায়ণ ২৭ ১৪২৫   ০২ রবিউস সানি ১৪৪০

২৪৬

বিএনপির স্বপ্ন ভেঙে দিলেন জামায়াত নেতা

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ২৯ নভেম্বর ২০১৮  

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বাগেরহাট-৩ (রামপাল-মোংলা) আসনে ড. ফরিদুল ইসলামকে বিএনপির প্রার্থী হিসেবে পেয়ে জয়ের স্বপ্ন দেখলেও এবার হেরে যাওয়ার আশঙ্কায় রয়েছে স্থানীয় বিএনপি।

এ আসনে ফরিদুল ইসলাম বিএনপির প্রার্থী হওয়ায় নেতাকর্মীদের মাঝে জয়ের স্বপ্ন দেখা দেয়। কিন্তু একই আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে জামায়াত নেতা আব্দুল ওয়াদুদ মনোনয়নপত্র দাখিল করায় বিএনপির জয়ের স্বপ্ন ভেঙে হেরে যাওয়ার আশঙ্কা তৈরি হয়। সেইসঙ্গে বিএনপি নেতাকর্মীদের মাঝে দেখা দিয়েছে ক্ষোভ ও অসন্তোষ।

বিএনপির তৃণমূলের নেতাকর্মীরা বলছেন, এবার এ আসনে জয়ের স্বপ্ন ছিল আমাদের। কিন্তু আওয়ামী লীগের সঙ্গে বার বার হেরে যাওয়া জামায়াতের প্রার্থী নিয়ে এবারও নির্বাচনে জয়ী হওয়া সম্ভব হবে না।

ঐক্যফ্রন্টসহ বিএনপির স্থানীয় ও ত্যাগী নেতাকর্মীরা মনে করছেন, এবার চ্যালেঞ্জিং নির্বাচনে বিএনপির ক্লিনইমেজের প্রার্থী ছাড়া এ আসনে জয়লাভ করা সম্ভব নয়।

এ আসনে কেন্দ্রীয় নেতারা বিএনপির প্রার্থী হিসেবে ড. ফরিদকে চূড়ান্ত মনোনয়ন দিয়ে আসন রক্ষায় ভূমিকা রাখবেন এমনটি আশা করছেন স্থানীয় বিএনপির নেতাকর্মীরা।

রামপাল-মংলা দুই উপজেলা নিয়ে বাগেরহাট-৩ আসন। বিভিন্ন কারণে আসনটি প্রত্যেক দলের কাছে গুরুত্বপূর্ণ। ১৯৯১ সাল থেকে প্রতিটি নির্বাচনে আসনটিতে আওয়ামী লীগের প্রার্থী জয়ী হন।

বর্তমানে এ আসনে খুলনা সিটি মেয়রের স্ত্রী হাবিবুন নাহার আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করছেন। ১৯৯১ সাল থেকে কয়েকটি নির্বাচনে জামায়াতের প্রার্থী বরাবরই হেরেছেন।

বিএনপির দুঃসময়ে জামায়াতের প্রার্থী দলের জন্য প্রয়োজনীয় ভূমিকা রাখতে পারবেন কিনা সন্দেহ রয়েছে স্থানীয় বিএনপি নেতাকর্মীদের। দীর্ঘদিন ধরে হারানো আসনটি উদ্ধারে বিএনপি প্রার্থীকে নিয়ে নির্বাচনে লড়তে চান তারা।

তবে এ ব্যাপারে জামায়াত নেতাকর্মীদের সঙ্গে কথা বলতে চাইলে রাজি হননি। তাদের বক্তব্য, দল থেকে যাকে মনোনয়ন দেয়া হবে তার ভোট করবে জামায়াত।

মনোনয়ন দাখিলের শেষদিনে বাগেরহাট-৩ আসনে বিএনপির পক্ষে জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি ড. ফরিদুল ইসলাম ও জামায়াত নেতা অ্যাডভোকেট আব্দুল ওয়াদুদ মনোনয়ন জমা দেন। এরপরই স্থানীয় নেতাকর্মীদের মাঝে ক্ষোভ অসন্তোষ দেখা দেয়।

রামপাল উপজেলা বিএনপির সহ-সভাপতি মোহসিন ইজারাদার বলেন, দীর্ঘদিন ধরে এ আসন থেকে জামায়াতের প্রার্থী নির্বাচন করার কারণে আমরা এ আসনটি হারাচ্ছি। এ বছর ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে ফরিদুল ইসলাম মনোনয়ন জমা দেয়ায় আমরা খুশি হয়েছি। জয়ের স্বপ্ন দেখেছি। কিন্তু জামায়াতের প্রার্থী মনোনয়ন জমা দেয়ায় শুধু আমি নয়; আমাদের সকল নেতাকর্মীর মন ভেঙে গেছে। আমরা চাই ধানের শীষের একক প্রার্থী হিসেবে ফরিদুল ইসলাম নির্বাচন করুক।

মংলা পৌর বিএনপির সহ-সভাপতি মো. খলিলুর রহমান বলেন, জামায়াত নেতা আব্দুল ওয়াদুদ ধানের শীষ প্রতীকে নির্বাচন করলে বিএনপির ভরাডুবি হবে। কারণ এখানে সংখ্যালঘুদের অনেক ভোট রয়েছে, যারা কখনো জামায়াতকে ভোট দেবে না। জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি ড. ফরিদুল ইসলাম দীর্ঘদিন ধরে মানুষকে যে সেবা দিচ্ছেন ধানের শীষ প্রতীকে তিনি নির্বাচন করলে বিএনপি বিপুল ভোটে জয়ী হবে।

মংলার বুড়িরডাঙ্গা ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি অধ্যাপক নিতিশ বিশ্বাস বলেন, মংলা-রামপালে বিপুল পরিমাণ সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের লোকজন বসবাস করছেন। তারা কখনো জামায়াত নেতাকে ভোট দেবেন না। এ আসনে বিএনপি নেতা ফরিদুল ইসলাম ধানের শীষ প্রতীকে নির্বাচন করলে বিপুল ভোটে জয়ী হবেন। বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতাদের কাছে আমার ও স্থানীয় নেতাকর্মীদের দাবি, প্রার্থী চূড়ান্ত হওয়ার আগেই জামায়াত নেতা আব্দুল ওয়াদুদ যেন মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নেন।

রামপাল উপজেলা বিএনপির সহ-সভাপতি শহিদুর রহমান বলেন, দীর্ঘদিন ধরে বিএনপি জোটবদ্ধভাবে নির্বাচন করার কারণে এ আসনে জামায়াত নেতারা বিএনপির পক্ষে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন। কিন্তু সাধারণ ভোটাররা বিএনপিকে ভালোবাসলেও জামায়াত প্রার্থীকে ভোট দেয় না। এবার জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি ফরিদুল ইসলাম ধানের শীষ প্রতীকে নির্বাচন করলে জয়ী হবেন নিশ্চিত। কিন্তু দল থেকে এবারও যদি জামায়াত নেতা আব্দুল ওয়াদুদকে প্রার্থী করা হয়, সে সিদ্ধান্ত হবে দলের জন্য আত্মঘাতী।

জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি ড. শেখ ফরিদুল ইসলাম বলেন, আমি ছাত্রজীবন থেকে রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। সেই থেকে এলাকার মানুষের সুখে-দুঃখে পাশে থেকেছি। এলাকার মানুষ আমাকে ভালোবাসে। তারা চায় আমি ধানের শীষ প্রতীকে নির্বাচন করি। দল আমাকে মনোনয়ন দিয়েছে, আশা করি দলীয় নেতাকর্মী ও স্থানীয়দের চাহিদা অনুযায়ী দল আমাকে এ আসনে নির্বাচন করার সুযোগ দেবে। আমাকে সুযোগ দিলে বিএনপির জয় হবে ইনশা আল্লাহ।

মেহেরপুর বার্তা
মেহেরপুর বার্তা
এই বিভাগের আরো খবর