মঙ্গলবার   ১৯ মার্চ ২০১৯   চৈত্র ৫ ১৪২৫   ১২ রজব ১৪৪০

১৫

পেশীতে টান ধরলে করণীয়

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১০ জানুয়ারি ২০১৯  

ঘুমের মধ্যে এ সমস্যা অনেক বেশী হয়ে থাকে। আবার অনেক সময় আচমকাই পেশীতে টান ধরতে পারে। এটা একটু ম্যাসাজ করলে ঠিক হয়ে যায়। কিন্তু সারাদিন ধরে ব্যথা থাকে। অনেক সময় বরফ প্যাক দিকে পেশীর টান কমে যায় কিন্তু ব্যথা ঠিকই থাকে। এ পেশীতে টান কেন ধরে বা পেশীর টান কীভারে এড়িয়ে যাবেন? সে সম্পর্কে জেনে নিন-

পেশীতে টান কেন ধরে?: আমাদের শরীরে যদি অতিরিক্ত মাত্রায় ল্যাকটিক এসিড বেড়ে যায় কিংবা ভিটামিন এ, বি, সি, ই এই অভাবগুলো দেখা দেয়। অথবা শরীরে পটাশিয়ামের মাত্রা কমে গেলে এ ধরণের পেশীতে টানগুলো দেখা দেয়। আবার অনেক সময় শিশুদেরও এরকম টান ধরে। শিশুদের হাড় ও পেশীর বৃদ্ধির মধ্যে সমতা না থাকলে এ ধরণের টান হয়। এ টানগুলো সাধারণত শীতকালেই বেশি হয়। আবার শরীরে টক্সিনের মাত্রা বেশী হলেও পেশীতে এ ধরণের টান ধরতে পারে।

টক্সিন ও ল্যাকটিক এসিড যাতে না জমে এ জন্য প্রতিদিন আপনাকে শরীর চর্চা করতে হবে। অর্থাৎ ব্যায়াম করতে হবে। সেই সঙ্গে পটাশিয়াম সমৃদ্ধ খাবার খেতে হবে। এছাড়াও ভিটামিন ডি, ভিটামিন এ ও ভিটামিন ই সমৃদ্ধ খাবার খেতে হবে। যেমন: আখরোট, শিং, গাজর, কলা, দুগ্ধ জাতীয় যেকোনো খাবার খেতে পারেন। অনেকের দুধে সমস্যা থাকতে পারে। তারা এটা বাদ দিয়ে বাকি খাবারগুলো খেতে পারেন। তবে পেশী টান ধরার সমস্যা অনেক কমে যাবে।

যখন পেশীর টান ধরবে তখন আপনি হালকা ম্যাসাজ করতে পারেন। আর তা নাহলে বরফের ছেঁক দিতে পারেন। তবে পেশীর টান ধরা সমস্যা খুব তাড়াতাড়ি কমে যাবে।

শিশুদের যদি ঘন ঘন পেশীতে টান ধরে তবে অবশ্যই চিকিৎসকের কাছে যেতে হবে। সেই সঙ্গে শিশুদের প্রচুর পরিমাণ পটাশিয়াম ও ভিটামিন ডি সমৃদ্ধ খাবার খেতে হবে। আর শিশুদেরও প্রতিদিন ব্যায়াম করানোর অভ্যাস করতে হবে। যাতে শরীরে টক্সিন উপাদান জমতে না পারে। তারপরও পেশীতে টান ধরলে হালকা হাতে পেশীতে ম্যাসজ করতে পারেন।

মেহেরপুর বার্তা
মেহেরপুর বার্তা