রোববার   ১৬ জুন ২০১৯   আষাঢ় ৩ ১৪২৬   ১২ শাওয়াল ১৪৪০

২০৪

নৌকার পক্ষে ঐক্যবদ্ধ গাংনী আ’লীগের দুঃসময়ের বন্ধুরা 

নিজস্ব প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ৪ ডিসেম্বর ২০১৮  

মেহেরপুর-২ (গাংনী) আসনে নৌকা প্রার্থীকে বিজয়ী করতে ঐক্যবদ্ধ আওয়ামী লীগের প্রাক্তন নেতারা। যারা দলের দুঃসময়ের কাণ্ডারির ভূমিকা পালন করে থাকেন। গাংনীতে আওয়ামী লীগের অনেক খারাপ সময়ে তারা ভূমিকা পালন করে নেতাকর্মীদের এক্যবদ্ধ করতে ভূমিকা পালন করেছেন। 

নৌকা প্রার্থী বিজয় না হওয়ার ৩৪ বছরের গ্লানি মুছে দিতে তারা গাংনী আওয়ামী লীগের প্রথম সারির নেতাদের ঐক্যবদ্ধ করার কাজ শুরু করছেন।
 
জানা গেছে, বিশিষ্ট সমাজ সেবক হাজী মহাসিন আলী, হাজী আলফাজ উদ্দিন ও জেলা ইটভাটা মালিক সমিতি সাধারণ সম্পাদক এনামুল হক আওয়ামী লীগ পরিবারের মানুষ। তারা দলীয় পদ পদবী না নিলেও আওয়ামী লীগের রাজনীতির বড় শুভাকাঙ্খি। তারা গাংনী শহরের কেন্দ্রীয় মসজিদ ও ঈদগাহ কমিটি পরিচালনাসহ বিভিন্ন সামাজিক কাজের সাথে জড়িত। ফলে এলাকায় পরিচ্ছন্ন, সৎ ও নিষ্ঠাবান মানুষ হিসেবে পরিচিত। এছাড়াও ছাত্রলীগের প্রাক্তন নেতৃবৃন্দ যারা বিভিন্ন পেশায় জড়িত তারা আলাদাভাবে নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ করতে ব্যাপক ভূমিকা পালন করছেন।
 
জানা গেছে, এ তিনজন ছাড়াও তাদের সাথে রয়েছেন আওয়ামী লীগ মনা বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ ও ছাত্রলীগের প্রাক্তন নেতৃবৃন্দ। মেহেরপুর-২ আসনের সব নেতাদের ঐক্যবদ্ধ করতে তারা নেতাদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে অনুরোধ করছেন।
 
মেহেরপুর-২ আসনে ২০১৪ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জয়লাভ করেন আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী (স্বতন্ত্র) মকবুল হোসেন। তার প্রতিদ্বন্দী প্রার্থী জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক খালেক পরাজয় বরণ করেন। এর আগে থেকে গাংনী আওয়ামী লীগ মকবুল হোসেন ও এম এ খালেক গ্রুপে বিভক্ত। 

একাদশ জাতীয় নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন চেয়েছিলেন মকবুল হোসেন। দল মনোনয়ন দিয়েছে উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি সাহিদুজ্জামান খোকনকে। 

মনোনয়ন বঞ্চিত সাত জন মনোনয়নপত্র দাখিল করেন। দলীয় মনোনয়ন না থাকায় ৫ জনের মনোনয়নপত্র বাতিল করেছেন রিটার্নিং কর্মকর্তা। টিকে রয়েছেন দু’জন। সাহিদুজ্জামান খোকন দলীয় প্রার্থী এবং বর্তমান সাংসদ মকবুল হোসেন স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে। স্বতন্ত্র প্রার্থী মাঠে থাকলে নৌকার ভরাডুবি হতে পারে তাই স্বতন্ত্র প্রার্থীকে নৌকার পক্ষে আনার জন্যই মূলত কাজ করছেন আওয়ামী লীগের অনেক শুভাকাঙ্খি।
 
জানা গেছে, স্বতন্ত্র প্রার্থীর পক্ষে এবার তেমন কোন নেতাকর্মী মাঠে কাজ করছেন না। বিশেষ করে গ্রাম ও ইউনিয়ন পর্যায়ের অনেক নেতাকর্মী নৌকার পক্ষে কাজ শুরু করেছেন। এখন উপজেলা পর্যায়ের প্রথম সারির নেতাদের মাঠে নামাতে পারলেই নৌকার বিজয় সহজ হবে। দ্রুততম সময়ের মধ্যে সকল নেতাকর্মী নৌকার পক্ষে মাঠে নেমে কাজ শুরু করবেন বলে জানালেন অনেক নেতাকর্মী। 

মেহেরপুর বার্তা
মেহেরপুর বার্তা
এই বিভাগের আরো খবর