রোববার   ১৮ আগস্ট ২০১৯   ভাদ্র ৩ ১৪২৬   ১৬ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০

৩২

ডেঙ্গু টেস্টের ফি তদারকির নির্দেশ হাইকোর্টের

নিউজ ডেস্ক:

প্রকাশিত: ৩০ জুলাই ২০১৯  

ডেঙ্গু রোগে আক্রান্ত রোগীদের বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিকগুলো জ্বরের ভাইরাস পরীক্ষায় নির্ধারিত মূল্য ৫শ’ টাকার বেশি আদায় করছে কিনা তা তদারকি করতে নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। একইসঙ্গে রোগীদের যথাযথ স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত হচ্ছে কিনা তাও দেখতে বলা হয়েছে।

এ ছাড়া সরকারি হাসপাতালের পাশাপাশি বেসরকারি হাসপাতালেও প্যারাসিটামল ও ডেঙ্গু রোগীর স্যালাইন সরবরাহ করার পরামর্শ দিয়েছেন আদালত।

আইনজীবী মোস্তাক আহমেদ চৌধুরী আদালতে এ সংক্রান্ত সংবাদ উপস্থাপনের পর সোমবার বিচারপতি এফ আর এম নাজমুল আহাসান এবং কে এম কামরুল কাদেরের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ স্ব-প্রণোদিত হয়ে এ আদেশ দেন।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালককে এ আদেশ পালন করে আগামী ১ আগস্ট প্রতিবেদন দাখিল করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

আদালতে শুনানি করেন আইনজীবী মোস্তাক আহমেদ চৌধুরী। রাষ্ট্রপক্ষের ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল ব্যারিস্টার এবিএমন আবদুল্লাহ আল মাহমুদ বাশার।

শুনানির সময় আদালতে বলেন, ডেঙ্গু রোগীদের ক্ষেত্রে বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিকগুলোকে কোনোভাবেই ফাইভ স্টার হোটেল হতে দেয়া যাবে না। আদালত বলেন, যে সব বেসরকারি হাসপাতালে ফাইভ স্টার মানের বিল নেয় তাদের কাছে রোগীর সেবার মান যেন ফাইভ স্টারের হয়।

এর আগে ২৫ জুলাই ‘ডেঙ্গু পরীক্ষায় অতিরিক্ত ফি’ আদায় করা হচ্ছে এ শিরোনামে  কয়েকটি জাতীয় দৈনিকে এমন সংবাদ প্রকাশিত হয়।

এটি আদালতে উপস্থাপনের পর বেসরকারি মেডিকেল, হাসপাতাল ও ক্লিনিকে ডেঙ্গু ও চিকুনগুনিয়া শনাক্ত করার জন্য পরীক্ষার ফি নির্ধারণ এবং তা সবার সাধ্যের মধ্যে রাখার ব্যবস্থা নিতে স্বাস্থ্য অধিদফতরকে নির্দেশ দিয়েছিলেন হাইকোর্ট।

একই সঙ্গে, পদক্ষেপ গ্রহণ করার পর আজ ২৯ জুলাই বিষয়টি আদালতকে অবহিত করতে ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেলকে নির্দেশ দেয়া হয়েছিল। সেই হিসেবে আদালতে ডেপুটি অ্যার্টনি জেনারেল আজ আদালতে এ বিষয়ে অগ্রগতি প্রতিবেদন দাখিল করেন। এতে বলা হয়, প্রাইভেট হাসপাতালের প্রত্যেক প্রতিনিধিদের নিয়ে মিটিং করা হয়েছে।  সব হাসপাতালকে ডেঙ্গু রোগীদের জন্য অগ্রাধিকার সেবার মান, বেড বৃদ্ধি ও সরকার নির্ধারিত পরীক্ষার ফি’র নির্দেশ দেয়া হয়।  

পরে ব্যারিস্টার এবিএমন আবদুল্লাহ আল মাহমুদ বাশার সাংবাদিকদের বলেন, বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিকগুলোকে কোনোভাবেই ফাইভ স্টার হোটেল হতে দেয়া যাবে না। সহনীয় পর্যায়ে ফি ধার্য করতে হবে। এ সময় আদালতও বলেন,আমরাও চাই রোগীরা যেন অতিরিক্ত ফি আদায়ের নামে হয়রানির শিকার না হয়।

মেহেরপুর বার্তা
মেহেরপুর বার্তা
এই বিভাগের আরো খবর