ব্রেকিং:
নয়াপল্টনে ভাংচুরকারী সন্ত্রাসীদের ধরিয়ে দিতে পুলিশের অনুরোধ ৭ নভেম্বরের পর দেশ দখলের হুমকি দিলো বিএনপির দুদু

শুক্রবার   ১৪ ডিসেম্বর ২০১৮   অগ্রাহায়ণ ৩০ ১৪২৫   ০৫ রবিউস সানি ১৪৪০

১৩১

জাহাঙ্গীরনগরে শিক্ষকদের ধাক্কাধাক্কির পেছনে বিএনপি-জামায়াত

ডেস্ক রিপোর্ট

প্রকাশিত: ৮ নভেম্বর ২০১৮  

দীর্ঘ ১৫ মাস পর ডাকা সিন্ডিকেট সভাকে কেন্দ্র করে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের দুই পক্ষের মধ্যে ধাক্কাধাকির ঘটনা ঘটেছে। উপাচার্য ফারজানা ইসলাম এবং সাবেক উপাচার্য  শরীফ এনামুল কবিরের অনুসারী শিক্ষকেরা ধাক্কাধাক্কিতে জড়িয়ে পড়েন। অভিযোগ আছে এই অনৈক্যের পেছনে ইন্ধন দিচ্ছে বিএনপি-জামায়াতপন্থী শিক্ষকরা। বুধবার (০৭ নভেম্বর) বিকাল সোয়া চারটায় বিশ্ববিদ্যালয়ের পুরাতন প্রশাসনিক ভবনের কাউন্সিল কক্ষের সামনে এই ঘটনা ঘটে।


ধাক্কাধাক্কির সময় কাউন্সিল কক্ষে চলছিল বিশ্ববিদ্যালয়ের ৩০৩তম নিয়মিত সিন্ডিকেট সভা। নতুন শিক্ষক নিয়োগ, পদোন্নতি, নিয়োগ স্থায়ীকরণসহ আরও কয়েকটি বিষয় সভার আলোচ্যসূচিতে ছিল। সভার বাইরে ধাক্কাধাক্কির ঘটনার পর প্রশাসনিক ভবনে কিছু সময়ের জন্য উত্তেজনা শুরু হয়। এসময় সেখানে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের ৫০-৬০জন নেতা-কর্মীকে জামায়াত-শিবির বিরোধী শ্লোগান দিতে দেখা যায়।  

 

এর আগে গত ১৭ এপ্রিল ভোরে ওই দুই পক্ষের শিক্ষকদের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটেছিল।

জানা যায়, বিকাল চারটায় প্রশাসনিক ভবনের কাউন্সিল কক্ষে সিন্ডিকেট সভা শুরু হয়। সভাকে কেন্দ্র করে উপাচার্য ফারজানাপন্থী শিক্ষকরা আগে থেকেই প্রশাসনিক ভবনে অবস্থান নেন। বিকাল চারটায় সাবেক উপাচার্য শরীফপন্থী শিক্ষকরা প্রশাসনিক ভবনে যান। পরে তারা কাউন্সিল কক্ষের সামনে অবস্থান নেন।

 

সোয়া চারটার দিকে বাংলাদেশ কৃষক লীগের সভাপতি এবং সিন্ডিকেট সদস্য মোতাহার হোসেন মোল্লা সভায় যোগ দিতে কাউন্সিল কক্ষে প্রবেশ করতে চাইলে শরীফপন্থী শিক্ষকদের মধ্যে লুকিয়ে থাকা জাম্যাত-বিএনপির শিক্ষকদের বাধার মুখে পড়েন। এসময় ফারজানাপন্থী শিক্ষকরা মানবঢাল তৈরি করে তাকে কাউন্সিল কক্ষে প্রবেশ করাতে থাকেন। এ নিয়ে দুই পক্ষের শিক্ষকরা ধাক্কাধাক্কিতে জড়িয়ে পড়েন। মোতাহার হোসেন মোল্লা প্রবেশের পর পাঁচটার দিকে শরীফপন্থী সিন্ডিকেট সদস্য উপ-উপাচার্য আমির হোসেন এবং বাংলা বিভাগের নাজমুল হাসান তালুকদার সভা বর্জন করে বের হয়ে আসেন।

 

নাম প্রকাশ না করার শর্তে একাধিক শিক্ষক জানান, বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজনীতিতে মোতাহার হোসেন মোল্লা একজন গুরুত্বপূর্ণ চরিত্র। তিনি জাকসুর সাবেক ভিপি, তিনি সিনেট ও সিন্ডিকেটেরও সদস্য। তাকে এভাবে হেনস্থা যারা করেছে তারা বিএনপি-জামায়াতের লোক। 

 

এদিকে, সিন্ডিকেট সভা চলাকালে ৪টা ৫০মিনিটে বিএনপিপন্থী শিক্ষকরা প্রশাসনিক ভবনে যান। 

অপরদিকে, বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তিতে বিভাগ উন্নয়ন ফি বাতিলের দাবিতে বিকাল সাড়ে তিনটা থেকে সাড়ে পাঁচটা পর্যন্ত প্রশাসনিক ভবনের সামনে অবস্থান কর্মসূচি পালন করে প্রগতিশীল ছাত্রজোট।

 

উল্লেখ্য, এ বছরের মার্চে ফারজানা ইসলাম দ্বিতীয় মেয়াদে উপাচার্য হিসেবে নিয়োগ পাওয়ার পর থেকেই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের মধ্যে দ্বন্ধ চলে আসছে, যার পেছনে আছে বিএনপি-জামায়াতপন্থী শিক্ষকদের ষড়যন্ত্র। 

মেহেরপুর বার্তা
মেহেরপুর বার্তা
এই বিভাগের আরো খবর