মঙ্গলবার   ১৯ মার্চ ২০১৯   চৈত্র ৫ ১৪২৫   ১২ রজব ১৪৪০

১৮

জাবি শিক্ষক সমিতির নির্বাচন ৩১ জানুয়ারি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১০ জানুয়ারি ২০১৯  

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় (জাবি) শিক্ষক সমিতির কাযনির্বাহী পরিষদ- ২০১৯-এর নির্বাচন ৩১ জানুয়ারি (বৃহস্পতিবার) অনুষ্ঠিত হবে। ঐ দিন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ক্লাবে সকাল ৯টা থেকে দুপুর দেড়টা পর্যন্ত চলবে ভোট গ্রহণ।

নির্বাচন কমিশনার, নগর ও অঞ্চল পরিকল্পনা বিভাগের অধ্যাপক ড. এ কে এম আবুল কালাম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

ড. এ কে এম আবুল কালাম জানান, বুধবার নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয়েছে। কাযনির্বাহী পরিষদের এই নির্বাচনে সভাপতি, সহ-সভাপতি, কোষাধ্যক্ষ, সম্পাদক ও যুগ্ম সম্পাদক পদে একজন করে এবং নির্বাহী পরিষদের সদস্য পদে ১০ জনসহ মোট ১৫টি পদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। ১০ জানুয়ারি ভোটারদের খসড়া তালিকা এবং ১৫ জানুয়ারি চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশ করা হবে। প্রার্থীদের ১৭ জানুয়ারি মনোনয়নপত্র দাখিল করতে হবে। মনোনয়নপত্র যাচাই এবং একই দিনে বৈধ প্রার্থীদের তালিকা প্রকাশ করা হবে। প্রত্যাহারের নির্ধারিত তারিখ ২৩ জানুয়ারি এবং ওই দিনই প্রার্থীদের চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশ করা হবে। ৩১ জানুয়ারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ক্লাবে সকাল ৯টা থেকে দুপুর দেড়টা পর্যন্ত চলবে ভোট গ্রহণ।

তিনি আরো জানান, নির্বাচনে সহকারী নির্বাচন কমিশনারের দায়িত্ব পালন করবেন নগর ও অঞ্চল পরিকল্পনা বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. আকতার মাহমুদ এবং আইবিএ’র সহযোগী অধ্যাপক মোহাম্মদ নাজমুল ইসলাম।

এদিকে, ২০১৮ সালের শিক্ষক সমিতির নির্বাচনের মতো এবারও বর্তমান উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলাম ও সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক শরীফ এনামুল কবির এই দুই মেরুতে বিভক্ত হয়ে আওয়ামীপন্থি শিক্ষকরা নির্বাচনে অংশগ্রহণ করার আভাস পাওয়া গেছে।

গত বছর খালেদা জিয়ার গ্রেফতারের প্রতিবাদে বিএনপি সমর্থক শিক্ষকরা নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেননি কিন্তু এবারের নির্বাচনে অংশগ্রহণের পাশাপাশি নিজের প্রার্থী দেওয়ার মাধ্যমে শক্তিশালী অবস্থান নেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন।

আওয়ামীপন্থি শিক্ষকদের একাংশ ‘বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজ’-এর সভাপতি অধ্যাপক ড. অজিত কুমার মজুমদার বলেন, ‘আমরা নির্বাচনের ব্যাপারে এখনো কোনো সিদ্ধান্ত নেইনি। ১৪ জানুয়ারি মিটিং ডাকা হয়েছে। সেদিন সব ব্যাপারে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হবে।’

এদিকে উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলাম সমর্থিত আওয়ামীপন্থি শিক্ষক গ্রুপ ‘বঙ্গবন্ধুর আদর্শের শিক্ষক পরিষদ’-এর সাথে মিলিত হয়ে নির্বাচন করার কোনো সম্ভাবনা আছে কি না জানতে চাইলে ড. অজিত কুমার মজুমদার বলেন, ‘দুই পক্ষ এক হয়ে নির্বাচন অংশগ্রহণ করার মতো কোনো পরিস্থিতি সৃষ্টি হয় নাই। ১৪ তারিখেই আমরা সব সিদ্ধান্ত নেব।’

‘বঙ্গবন্ধুর আদর্শের শিক্ষক পরিষদ’-এর সভাপতি অধ্যাপক ড. মো. আবদুল মান্নান চৌধুরী বলেন, ‘শিক্ষক সমিতির নির্বাচনের ব্যাপারে আমরা আজকে মিটিং করে সিদ্ধান্ত নিব। বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজের সাথে এক হয়ে নির্বাচন করার কোনো সম্ভাবনা নাই।’

‘জাতীয়তাবাদী শিক্ষক ফোরাম’-এর সদস্য সচিব অধ্যাপক মো. শরিফ উদ্দিন বলেন, ‘এবারের নির্বাচনে আমরা অংশগ্রহণ করব এবং আমাদের প্রার্থী থাকবে। আমরা যেহেতু বিরোধী পক্ষ তাই বিশ্ববিদ্যালয়ের মঙ্গলের জন্য আমাদের বিরোধী শক্তিশালী অবস্থান থাকা উচিত। আমাদের কাল মিটিংয়ের মাধ্যমে নির্বাচনের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেব।’
 

মেহেরপুর বার্তা
মেহেরপুর বার্তা
এই বিভাগের আরো খবর