রোববার   ১৮ আগস্ট ২০১৯   ভাদ্র ২ ১৪২৬   ১৬ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০

৬৮

এবারের ‘ঈদ ইত্যাদি’তে যা থাকছে

বিনোদন ডেস্ক:

প্রকাশিত: ১ জুন ২০১৯  

প্রতিবারের মত এবারো ছোট পর্দার বড় আকর্ষন থাকবে ইত্যাদি। কারণ ম্যাগাজিন অনুষ্ঠানটি এখন ঈদের ঐতিহ্যে পরিণত হয়েছে। প্রতি বছরের মত এবারো ঈদ আনন্দের সঙ্গে দর্শকদের জন্য বাড়তি আনন্দ নিয়ে আসছে হানিফ সংকেত এর ইত্যাদি।

ঈদ এলেই টিভি দর্শকরা অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করেন তাদের প্রিয় অনুষ্ঠান ইত্যাদি দেখার জন্য। কোনো নির্দিষ্ট বয়স বা শ্রেণীর জন্য নয়-সব বয়সী, সব শ্রেণী-পেশার মানুষের জন্যই ইত্যাদি। তাই এটাকে বলা হয় গণমানুষের অনুষ্ঠান। গত ৩০ বছর ধরে এত চ্যানেলের হাজারো অনুষ্ঠানের ভিড়ে এখনো দর্শক জরিপে শীর্ষে অবস্থান করে অনুষ্ঠানটি বিষয় বৈচিত্র্য, ধারণস্থান, মানবিক প্রতিবেদন, শিক্ষা-তথ্য-বিনোদন সর্বোপরি দর্শকপ্রিয়তা প্রতিটি ক্ষেত্রেই নুতন নুতন অধ্যায় সৃষ্টি করেছে। আর ঈদ ইত্যাদি’র তো কোনো জুড়িই নেই।

বর্ষাকালে উন্মুক্ত স্থানে করা সম্ভব নয় বলে এবারো ঈদের ইত্যাদি ধারণ করা হয়েছে মিরপুর শহীদ সোহরাওয়ার্দী ইনডোর স্টেডিয়ামে। ভেন্যুর প্রায় তিন ভাগের এক ভাগ স্থান জুড়ে নির্মাণ করা হয়েছিল নান্দনিক সেট। বর্ণাঢ্য এই আয়োজনে পুরো অনুষ্ঠানটিতে এক উৎসবের আমেজ তৈরি হয়েছিল।

বরাবরের মত এবারো ইত্যাদি শুরু করা হয়েছে- ‘ও মন রমজানের ওই রোজার শেষে এল খুশির ঈদ’ এই গানটি দিয়ে। একসময় ঈদ অনুষ্ঠানমালায় এই গানটি ছিল একরকম অবহেলিত। ইত্যাদি গত তিন দশক ধরেই হাজার হাজার মানুষ নিয়ে ঢাকায় ও দেশের বিভিন্ন স্থানে বিভিন্ন আঙ্গিকে এই গানটি পরিবেশন করে আসছে। যে কারণে এখন ঈদের সময় সব চ্যানেলেই এই গানটিকে বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে প্রচার করা হয়। নানা শ্রেণী-পেশার মানুষের অংশগ্রহণের ধারাবাহিকতায় এবারে নৃত্যে-ছন্দে-আনন্দে চিরচেনা এই গানটি পরিবেশন করবেন সুখ্যাত নৃত্য জুটি শিবলী মোহাম্মদ ও শামীম আরা নিপা। তাদের সঙ্গে রয়েছে নৃত্যাঞ্চলের শতাধিক নৃত্য শিল্পী।

হানিফ সংকেত

হানিফ সংকেত

এবারের ঈদ ইত্যাদিতে একটি দেশাত্মবোধক গান গেয়েছেন নন্দিত শিল্পী এ্যান্ড্রু কিশোর, কুমার বিশ্বজিৎ ও শফি মন্ডল। গানটি লিখেছেন খ্যাতিমান গীতিকবি মোহাম্মদ রফিকউজ্জামান এবং সুর ও সঙ্গীতায়োজন করেছেন সুমন কল্যান। গানটির চিত্রায়নে শিল্পীদের সঙ্গে অংশ নিয়েছে নির্ঝর ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজ এর শতাধিক শিক্ষার্থী। রয়েছে ছন্দে-সুরে একটি ব্যতিক্রমী আড্ডা। এ ধরণের ব্যতিক্রম বিষয় ইত্যাদি ছাড়া কোনো অনুষ্ঠানে দেখা যায় না। এবারের আড্ডায় দর্শকরা দেখবেন তারকাদের মুখে মুখে ছড়া আর ছন্দ-কত খানি তুলে আনে সময়ের দ্বন্দ্ব। আর এই ব্যতিক্রমী আড্ডায় অংশগ্রহণ করেছেন জনপ্রিয় অভিনয় শিল্পী-শহীদুজ্জামান সেলিম, চঞ্চল চৌধুরী, মম ও ঈশিতা। এর সঙ্গীতায়োজন করেছেন নাভিদ পারভেজ।

ঈদ ইত্যাদির নানান চমকের একটি হচ্ছে দর্শক প্রিয় ৪ জন অভিনয় তারকাকে নিয়ে একটি বিষয় ভিত্তিক গান ও নৃত্য। আর নৃত্যগীতে এই পর্বটিকে প্রাণবন্ত— করেছেন জনপ্রিয় চিত্রতারকা ফেরদৌস, পূর্ণিমা ও এই প্রজন্মের সিয়াম এবং পূজা। গানটিতে সঙ্গীত পরিচালনা করেছেন মেহেদী। নৃত্য পরিচালনায় মামুন।

ঈদের জন্য ইত্যাদির ভিন্নরকম উদ্ভাবন মিউজিক্যাল ড্রামা। গত এক দশক ধরেই ঈদ ইত্যাদিতে তারকা শিল্পীদের অংশগ্রহণে নির্মিত হয় এই মিউজিক্যাল ড্রামা। আর প্রতি ঈদেই এই পর্বে যুক্ত হয় নিত্য-নুতন সব বিষয়। এবারের মিউজিক্যাল ড্রামার বিষয়বস্তু কী দেখার জন্য ঈদ ইত্যাদি প্রচার পর্যন্ত— অপেক্ষা করতেই হবে। আর এতে অভিনয় করেছেন দেশের জনপ্রিয় অভিনয় তারকা-ঈমন, নিরব, সাঈদ বাবু, নিপুন, সারিকা এবং এই প্রজন্মের জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী কনা। সঙ্গীত পরিচালনা করেছেন ফরিদ আহমেদ ও নাভিদ পারভেজ।

মীর সাব্বির, আনিসুর রহমান মিলন ও নাদিয়া

মীর সাব্বির, আনিসুর রহমান মিলন ও নাদিয়া

ব্যতিক্রমী উপস্থাপনায় আরব্য উপন্যাসের একটি গল্পের আদলে তৈরী করা হয়েছে এবারের দলীয় সঙ্গীত। এবার এই পর্বে অংশগ্রহণ করেছেন জনপ্রিয় অভিনয় তারকা মীর সাব্বির, আনিসুর রহমান মিলন ও নাদিয়া। তার সঙ্গে অংশগ্রহণ করেছেন ইত্যাদির নিয়মিত নৃত্যশিল্পীরা। সঙ্গীতায়োজন করেছেন মেহেদী। শুধু প্রত্যন্ত— অঞ্চলে গিয়ে অনুষ্ঠান ধারণই নয়-প্রায় দুই যুগ ধরে ইত্যাদিতে বিদেশি নাগরিকদের দিয়েও আমাদের লোকজ সংস্কৃতি, বিভিন্ন গ্রামীণ খেলাধুলা, ইতিহাস ও ঐতিহ্যকে নিয়মিতভাবে তুলে ধরা হচ্ছে। এর ফলে বিদেশিদের মাধ্যমে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়ছে আমাদের সংস্কৃতি। এবারের বিদেশি পর্বে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের প্রায় অর্ধ শতাধিক বিদেশি নাগরিক অংশগ্রহণ করেছেন। নাচ-গান ও গ্রামীণ জীবনের বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে তুখোড় অভিনয় সমৃদ্ধ এবারের পর্বের বিষয় কী? ঈদের পরদিন ইত্যাদির প্রচারের সময়ই জানতে পারবেন।

প্রতিবারই ইত্যাদির দর্শক নির্বাচন প্রক্রিয়া থাকে ভিন্ন রকম। এবারো তার ব্যাতিক্রম হয়নি। প্রতিটি দর্শকের হাতে সময়কে ঘিরে একটি করে ব্যতিক্রমী উপকরণ দিয়ে সেখান থেকে বাছাই করা হয়েছে দর্শক পর্বের জন্য ৪ জন দর্শক। উলে­খ্য অনুষ্ঠানের প্রয়োজনে মাত্র ১৫ সেকেন্ডের জন্য লক্ষাধিক টাকা ব্যয়ে এই উপকরণগুলো তৈরি করা হয়েছে। আর এই পর্বেই দর্শকদের সঙ্গে অংশগ্রহণ করেছেন জনপ্রিয় অভিনয় তারকা অপূর্ব ও মিথিলা। অভিনেতা-অভিনেত্রী না হয়েও নির্বাচিত দর্শকরা তাৎক্ষণিকভাবে অপূর্ব ও মিথিলার সঙ্গে চমৎকার অভিনয় করেছে।

ভাগ্নের গোমর ফাঁস করে দিয়েছেন মামা কিন্তু কিভাবে? আর নাতি এবার নানীর উপর বেশ উত্তেজিত কিন্তু কি কারণে? এসবই জানা যাবে ইত্যাদি প্রচার হলে। এছাড়া ঈদকে ঘিরে ডজনখানেক বিদ্রুপাত্বক রসালো নাট্যাংশ রয়েছে এবারের পর্বে। লাইফ না লাইভ? ভান করার ফান, ডিজিটাল ভিক্ষুক, ফাইল পেতে মাইকিং, অ্যাপসে আপস, টি শার্টে আর্ট, অদৃশ্য হয়ে যাবার দৃশ্যমান প্রতিক্রিয়াসহ বিভিন্ন বিষয়ে আরো কয়েকটি নাট্যাংশ রয়েছে।

ব্যতিক্রমী আড্ডায় চার অভিনয়শিল্পী

ব্যতিক্রমী আড্ডায় চার অভিনয়শিল্পী

ঈদ ইত্যাদির উলে­খযোগ্য শিল্পীরা হলেন এস এম মহসীন, আতাউর রহমান, দিলারা জামান, সোলায়মান খোকা, মাসুদ আলী খান, তবিবুল ইসলাম বাবু, জিনাত শানু স্বাগতা, আব্দুল কাদের, আফজাল শরীফ, শবনম পারভীন, আমিন আজাদ, কাজী আসাদ, জিল্লুর রহমান, কামাল বায়েজিদ, বিলু বড়ুয়া, রতন খান, বিণয় ভদ্র, আনোয়ার শাহী, তারিক স্বপন, জামিল হোসেন, নিপু, শামীম, রাশেদ মামুন অপু, সাজ্জাদ সাজু, আনোয়ারুল আলম সজল, বাহার, আসমা, মতিউর রহমান, নজরুল ইসলাম, জাহিদ চৌধুরী, ইমিলা, মনজুর আলম, হাশিম মাসুদ ও আরো অনেকে। ইত্যাদির শিল্প নিদের্শনা করেছেন যথারীতি মুকিমূল আনোয়ার মুকিম। পরিচালকের সহকারী হিসাবে ছিলেন রানা সরকার ও মামুন মোহাম্মদ।

ইত্যাদি রচনা, পরিচালনা ও উপস্থাপনা করেছেন হানিফ সংকেত। নির্মাণ করেছে ফাগুন অডিও ভিশন। ইত্যাদি একযোগে প্রচার হবে বিটিভি ও বিটিভি ওয়ার্ল্ডে-এ ঈদের পর দিন রাত ১০টা ২০ মিনিটে।

মেহেরপুর বার্তা
মেহেরপুর বার্তা
এই বিভাগের আরো খবর